সর্বশেষ আপডেট
মেডিকেলে চান্স পেলো রাজমিস্ত্রির মেয়ে জাকিয়া সুলতানা কলেজে না গিয়েও এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষায় দ্বিতীয় নেহা । বাংলাদেশি কর্মীদের প্রশংসা করে যা বললেন মালয়েশিয়ার পুলিশপ্রধান । বাড়ির নিচতলায় গাড়ী চালকদের জন্য থাকা ও নামাজের ব্যবস্থা করতে হবেঃ প্রধানমন্ত্রী । প্রেমের টানে বাংলাদেশে ভারতীয় গৃহবধূ, সীমান্তে উত্তে’জনা । গোয়ালঘরে শিকলে বাঁধা বৃদ্ধা মা বললেন, মোর পোলারা ভালো । সাড়ে ৮ লাখ টাকা দিয়েও চাকরি হয়নি, কাঁদলেন প্রার্থী । গরু ছেড়ে নারীদের প্রতি বেশি যত্নবান হোনঃ মোদিকে এক নারী । যে কারণে তুহিনকে নি’র্মমভাবে হ’ত্যা করলেন বাবা । পিয়ন থেকে যেভাবে ১২০০ কোটি টাকার মালিক যুবলীগের আনিস ।
ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করলেন ভারতের ৬ হিন্দু পরিবার ।

ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করলেন ভারতের ৬ হিন্দু পরিবার ।

ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করলেন ভারতের ৬ হিন্দু পরিবার। তামিলনাড়ু রাজ্যের ভেদারনইয়াম ও কারুর গ্রামের ৬ পরিবারের ইসলাম গহণ করার পরপরই আরও ৫০ পরিবার ইসলাম গ্রহণ আগ্রহ প্রকাশ করেছেন এবং তারা প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলেও জানা যায়।

রাজ্যের এ অঞ্চলগুলোর মন্দিরে চলছে উৎসব। দলিত সম্প্রদায়ের লোকজন উৎসবে যোগদানের জন্য গেলে তাদের মন্দিরে প্রবেশে বাধা দেয়া হয়। এ ঘটনা থেকে ইসলাম গ্রহণের সূত্রপাত হয়।

ভারতীয় গণমাধ্যমের বরাতে রাজ্যের দলিত সম্প্রদায়ের মানুষজন জানায়, ভেদারনইয়ামে মহাশক্তি আমমান মন্দিরে একটি উৎসবের সময়ে তাদের ঢুকতে বাধা দেওয়া হয়। আর এ কারণেই তারা ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করার সিদ্ধান্ত নেয়।

তামিলনাড়ু রাজ্যের ভেদারনইয়াম ও কারুরগ্রামের দলিত সম্প্রদায়ের মানুষজনকে মন্দিরে প্রবেশ করতে না দেওয়া এবং তাদের মৌলিক অধিকার থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে বলে অভিযোগ ওঠেছে।

ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করার পর দলিত জনগোষ্ঠীর এক ব্যক্তি জানান, ভেদারনইয়ামে মহাশক্তি মন্দিরটি তাদের পূর্বপুরুষের সাহায্য সহযোগিতায় তৈরি। অথচ এখন এ মন্দিরের কোনো অনুষ্ঠানেই তারা অংশগ্রহণ করতে পারে না। তাদের কোনো অনুষ্ঠানেই অংশগ্রহণ করতে দেয়া হয় না।

মন্দিরে প্রবেশের ক্ষেত্রে কেউ তাদের সাহায্যেও এগিয়ে না আসার কারণেই তারা বাধ্য হয়ে হিন্দু থেকে মুসলিম হওয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে এবং ইসলাম গ্রহণ করেন। রাজ্যে এসব পরিবারের লোকদের ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করার ক্ষেত্রে কেউ তাদের জোর করেনি বলে জানায় তারা। স্বেচ্ছায় ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করার প্রস্তুতি নিচ্ছে আরও ৫০ পরিবার।

উত্তর ইউরোপের দেশ নরওয়েতে দেশটির নাগরিকদের মাঝে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ইসলাম গ্রহণের হার বৃদ্ধি পেয়েছে বলে দেশটির প্রভাবশালী দৈনিক ভারডেনস গ্যাঙ্গে (Verdens Gang) এক প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

অসলো বিশ্ববিদ্যালয়ের কালচারাল স্টাডিজ অ্যান্ড অরিয়েন্টাল ল্যাঙ্গুয়েজ বিভাগের একজন গবেষকের বরাত দিয়ে প্রতিবেদনটিতে বলা হয়, সাম্প্রতিক বছরগুলোতে প্রতিবছর প্রায় তিন হাজার করে নরওয়েজিয় নাগরিক ইসলাম গ্রহণ করছে। যা ১৯৯০ সালের দিকে বছরে পাঁচশত জনের হার থেকে কয়েকগুণ বেশি।

এছাড়া পূর্বে নরওয়েজিয় নারীদের মাঝে মুসলিম পুরুষদের বিবাহ করার জন্য ইসলাম গ্রহণের একটি প্রবণতা থাকলেও বর্তমানে সেই চিত্র সম্পূর্ণ পাল্টে গেছে। প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘বর্তমানে নারীরা ইসলাম সম্পর্কে পরিপূর্ণ অধ্যয়ন ও গবেষণার পর ইসলাম গ্রহণ করছে।’

ইসলাম গ্রহণকারী নরওয়েজিয় নারী মনিকা সালমুক জানান, চার বছর পূর্বে বিভিন্ন ধর্ম সম্পর্কে গবেষণা ও বিভিন্ন গ্রন্থ অধ্যয়নের পর তিনি ইসলামকে নিজের জন্য গ্রহণ করে নিয়েছেন। ৪২ বছর বয়সী নরওয়েজিয় নারী সোলভা নাবিলা স্যাক্সেলিন জানান, নরওয়েতে আশ্রয় নেওয়া মুসলিম শরণার্থীদের সাহায্য করতে গিয়ে তাদের কাছ থেকে তিনি ইসলাম গ্রহণ করার অনুপ্রেরণা পেয়েছেন।

১৯৬০ এর দশকে প্রথম নরওয়েতে মুসলমানদের অবস্থান দৃশ্যমান হতে থাকে। ১৯৭৪ সালে রাজধানী অসলোতে প্রথম মসজিদ স্থাপিত হয়। বর্তমানে নরওয়েতে মুসলমানরা দ্বিতীয় বৃহত্তম ধর্মীয় জনগোষ্ঠী। ২০১১ সালের হিসাব অনুযায়ী দেশটিতে মোট জনসংখ্যার ২.৩ শতাংশ মুসলমান।

আরো জানুন… এবার কুড়িগ্রাম জেলার নাগেশ্বরীতে ৩১ জন নারী-পুরুষ খ্রিস্ট ধর্ম গ্রহণের পর পুনরায় ইসলাম ধর্মে ফিরে এসেছেন। খ্রিস্টান মিশনারীর বিভিন্ন সংস্থার নানা রকম প্র*লোভনে তারা খ্রিস্ট ধর্ম দী*ক্ষিত হয়েছিল। গত ২১ আগস্ট বুধবার দুপুরে জেলার নাগেশ্বরী উপজেলা বাস স্ট্যান্ড সংলগ্ন সাবিলুর রাশাদ ক্যাডেট মাদরাসায় এসে তারা আবারো কালিমা পড়ে ইসলাম গ্রহণ করেন।

এদিকে সাবিলুর রাশাদ ক্যাডেট মাদরাসার পরিচালক হাফেজ মোহাম্মদ ফেরদাউস হাসানের তথ্য মতে, এ ৩১ নারী-পুরুষ সবাই আগে মুসলিম ছিলেন। বিভিন্ন সময় খ্রিস্টান মিশনারী পরিচালিত সংস্থাগুলোর নানা প্রলোভন ও আর্থিক সহায়তায় তারা দলবদ্ধভাবে খ্রিস্টান ধর্ম গ্রহণ করেছিল। এদিকে তারা খ্রিস্টান হওয়ার পর তাদেরকে পুনরায় মুসলিম হওয়ার জন্য দীর্ঘদিন ধরে দাওয়াতি কাজ পরিচালনা করা হয়। পরবর্তীতে তারা নিজেদের ভুল বুঝতে পেরে সেচ্ছায় পুনরায় ইসলাম গ্রহণ করেছেন বলে জানান হাফেজ ফেরদাউস।

এবার কুড়িগ্রাম জেলার নাগেশ্বরীতে ৩১ জন নারী-পুরুষ খ্রিস্ট ধর্ম গ্রহণের পর পুনরায় ইসলাম ধর্মে ফিরে এসেছেন। খ্রিস্টান মিশনারীর বিভিন্ন সংস্থার নানা রকম প্রলোভনে তারা খ্রিস্ট ধর্ম দীক্ষিত হয়েছিল। গত ২১ আগস্ট বুধবার দুপুরে জেলার নাগেশ্বরী উপজেলা বাস স্ট্যান্ড সংলগ্ন সাবিলুর রাশাদ ক্যাডেট মাদরাসায় এসে তারা আবারো কালিমা পড়ে ইসলাম গ্রহণ করেন। এদিকে সাবিলুর রাশাদ ক্যাডেট মাদরাসার পরিচালক হাফেজ মোহাম্মদ ফেরদাউস হাসানের তথ্য মতে, এ ৩১ নারী-পুরুষ সবাই আগে মুসলিম ছিলেন।

বিভিন্ন সময় খ্রিস্টান মিশনারী পরিচালিত সংস্থাগুলোর নানা প্রলোভন ও আর্থিক সহায়তায় তারা দলবদ্ধভাবে খ্রিস্টান ধর্ম গ্রহণ করেছিল। এদিকে তারা খ্রিস্টান হওয়ার পর তাদেরকে পুনরায় মুসলিম হওয়ার জন্য দীর্ঘদিন ধরে দাওয়াতি কাজ পরিচালনা করা হয়। পরবর্তীতে তারা নিজেদের ভুল বুঝতে পেরে সেচ্ছায় পুনরায় ইসলাম গ্রহণ করেছেন বলে জানান হাফেজ ফেরদাউস।

সংবাদটি শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019 newstodaybd.com
Design BY NewsTheme
[X]