সর্বশেষ আপডেট
লাইভ শোতে ২ সৌদি সমকামি তরুণীর ভালোবাসা প্রকাশ! ঝুড়িতে পাওয়া গেল কন্যা শি’শু, নাম দেওয়া হল ‘একুশে’ জরুরী আবহাওয়া বিজ্ঞপ্তিঃ সোমবার থেকে বৃষ্টি, চলবে তিনদিন! সুন্দরীর বিয়ের ফাঁদ, অপহরণ করে ১০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি, এরপর বেরিয়ে আসল চাঞ্চল্যকর তথ্য… বাসে বাবার বয়সী ব্যক্তির যৌ’ন হয়’রানি, কেঁদে বিচার চাইলেন বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রী আরব আমিরাতে করোনাভাইরাসে বাংলাদেশি প্রবাসী আ’ক্রা’ন্ত যুক্তরাষ্ট্রে কোরআন ছুঁয়ে শপথ নিলেন পুলিশ কর্মকর্তা গর্ভবতী হওয়া নিয়ে এবার মুখ খুললেন নায়িকা বুবলী, জেনে নিন নায়িকার স্বীকারুক্তি… কুমিল্লায় কয়েক হাজার কোটি টাকা নিয়ে শতাধিক কোম্পানি উধাও এবার নোবেলকে বিয়ে করছেন পূর্ণিমা!
মার্কিন চাপ সত্ত্বেও ইরান-রাশিয়া সম্পর্ক শক্তিশালী হচ্ছে: রুহানি

মার্কিন চাপ সত্ত্বেও ইরান-রাশিয়া সম্পর্ক শক্তিশালী হচ্ছে: রুহানি

ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি বলেছেন, আমেরিকার চাপ সত্ত্বেও রাশিয়ার সঙ্গে তার দেশের সম্পর্ক দিন দিন শক্তিশালী হচ্ছে। তিনি সোমবার সন্ধ্যায় তেহরান সফররত রাশিয়ার পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ দুমার চেয়ারম্যান ভিয়াচেস্লাভ ভোলোদিনের সঙ্গে এক বৈঠকে এ মন্তব্য করেন।বিশ্বের দেশগুলোর মধ্যে সম্পর্ক শক্তিশালী করার ক্ষেত্রে এসব দেশের পার্লামেন্টের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকার কথা স্মরণ করে হাসান রুহানি বলেন,

ইরান ও রাশিয়ার মধ্যে যৌথ পুজি বিনিয়োগসহ যেসব অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক চুক্তি সই হয়েছে অবিলম্বে সেগুলো বাস্তবায়নের কাজ হাত দেয়া উচিত। ইরান মধ্যপ্রাচ্যে স্থিতিশীলতা প্রতিষ্ঠান করতে চায় বলেও সাক্ষাতে উল্লেখ করেন প্রেসিডেন্ট রুহানি। তিনি বলেন, ওমান সাগর ও ভারত মহাসাগরে সম্প্রতি ইরান, রাশিয়া ও চীন যে যৌথ সামরিক মহড়া চালিয়ছে তাতে প্রমাণিত হয় নিজেদের মধ্যে সম্পর্ক শক্তিশালী করতে এই তিন দেশই গভীরভাবে আগ্রহী।

সাক্ষাতে রুশ পার্লামেন্টের চেয়ারম্যান বলেন, ইরান ও রাশিয়ার প্রেসিডেন্টদের আন্তরিক প্রচেষ্টার কারণে দু’দেশের সম্পর্ক আজ এতটা শক্তিশালী পর্যায়ে পৌঁছেছে। দ্বিপক্ষীয় সব সহযোগিতা চুক্তি অবিলম্বে কার্যকর করা দরকার বলেও তিনি জোর দিয়ে উল্লেখ করেন। রাশিয়ার পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ দুমার চেয়ারম্যান ভিয়াচেস্লাভ ভোলোদিন বর্তমানে একটি সংসদীয় প্রতিনিধিদল নিয়ে তেহরান সফর করছেন। প্রেসিডেন্ট রুহানির সঙ্গে সাক্ষাতের আগে তিনি ইরানের পার্লামেন্ট স্পিকার ড. আলী লারিজানির সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।

আজকের আলোচিত খবর… আজহারীর মাহফিলে ধর্মান্তরিত সেই ১২ জনকে ভারতে ফেরত। লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে ওয়াজ মাহফিলে ধর্মান্তরিত সেই ১২ নারী-পুরুষকে বিশেষ নিরাপত্তার মাধ্যমে যশোরের বেনাপোল বন্দর দিয়ে ভারতে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। সোমবার (২৭ জানুয়ারি) বিকেলে রামগঞ্জ থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। পুলিশ জানায়, ধর্মান্তরিত মনির হোসেনসহ (হিন্দু নাম শঙ্কর অধিকারী) ১২ জনের কাছ থেকে ভারতের বৈধ পাসপোর্ট পাওয়া গেছে।

তারা ভারতের নাগরিক। দুই মাসের ভিসা নিয়ে ২০১৯ সালের ১৪ আগস্ট যশোরের বেনাপোল হয়ে তারা বাংলাদেশে আসে। কিন্তু ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে গেলেও তারা ভারত ফিরে যায়নি। গত ডিসেম্বরে তারা ঢাকার কেরাণীগঞ্জ থেকে বাংলাদেশি জন্মসনদ তৈরি করেছে। যথাযথ প্রক্রিয়ার মাধ্যমেই তাদেরকে ভারত পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। ধর্মান্তরিত মনির হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, ২ মাসের ভিসা নিয়ে

আমরা বাংলাদেশে প্রবেশ করি। এরপর আমি স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলার ইছাপুর গ্রামে আসি। ভারত আর ফেরত যেতে চাই না। পুলিশ আমাদের ঢাকা নিয়ে যাওয়ার কথা বলে বেনাপোল দিয়ে ভারত পাঠাচ্ছে। আমরা ভারত গিয়ে কি করবো? সবকিছু বিক্রি করে আমরা বাংলাদেশে এসে মুসলমান হয়েছি। বেনাপোল ইমিগ্রেশনের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাসুম বিল্লাহ স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মীদের বলেন,

তারা পাসপোর্টধারী যাত্রী। নিয়ম অনুযায়ী ইমিগ্রেশনের আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে তারা ভারতে ফিরে গেছে। কোনো সমস্যা থাকলে আমরা বিষয়টি দেখতাম।জানা গেছে, শুক্রবার (২৪ জানুয়ারি) উপজেলার পানপাড়া এলাকার ওয়াজ মাহফিলে ইসলামী বক্তা ছিলেন মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারী ও আমির হামযাসহ কয়েকজন আলেম। সেখানে মাহফিলের আয়োজকদের মাধ্যমে মনির হোসেনসহ

তার পরিবারের ১২ জন সদস্য ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন। হিন্দু ধর্ম ছেড়ে ইসলাম গ্রহণ করায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভিডিওটি ভাইরাল হয়। এর প্রেক্ষিতে খোঁজ নিতে গিয়ে পুলিশ তাদেরকে ভারতীয় পাসপোর্টসহ গ্রেফতার করে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মনির প্রায় ৩৫ বছর আগে ঢাকার টঙ্গীতে খালা হালিমার কাছে থাকতো। তখন সে ঝালমুড়ি বিক্রি করতো। ওইসময় তার বয়স প্রায় ১৪ বছর ছিল।

বিশ্ব ইজতেমায় মুড়ি বিক্রি করতে গিয়ে একদিন সে হারিয়ে যায়। এরপরে তার আর কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি। মনির রামগঞ্জ উপজেলার ইছাপুর ইউনিয়নের ডাক্তার বাড়ির মজিবুল হক ও বর্তমান সংরক্ষিত ইউপি সদস্য ফাতেমা বেগমের বড় ছেলে। এ বিষয়ে ফাতেমার ছোট ছেলে জহির উদ্দিন বলেন, মনির ২০১৬ সালে দেশে একা এসেছিলেন। কিন্তু হিন্দু হয়ে গেছেন জেনে আমরা তাকে দুইদিনের বেশি

বাড়িতে থাকতে দেইনি। পরে তিনি ফের কলকাতায় চলে যান। এরপরে তিনি স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে ভারত থেকে চলে আসতে চেষ্টা করেন।২০১৯ সালের মাঝামাঝি সময়ে তিনি স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে দেশে চলে আসেন। পরিবারের সদস্যদের নিয়ে তিনি মুসলমান হতে চাইলে আমরা খুশি হই। এরপরই গত সপ্তাহে আনুষ্ঠানিকভাবে স্থানীয় একটি ওয়াজ মাহফিলে মনির স্ত্রী-ছেলেমেয়েদের নিয়ে ইসলাম গ্রহণ করেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019 newstodaybd.com
Design BY NewsTheme