এবার চন্দ্রযান-২ নিয়ে যা বললেন ভুটানের প্রধানমন্ত্রী ।

এবার চন্দ্রযান-২ নিয়ে যা বললেন ভুটানের প্রধানমন্ত্রী ।

সাফল্য নাকি ব্যর্থতা, শুক্রবার মধ্যরাত থেকে এসব হিসেব-নিকেশ চলছে দেশ জুড়ে। ভারতবাসী বোধহয় এখনও বিশ্বাস করতে পারছে না যে চন্দ্রযানের ল্যান্ডারের সঙ্গে যোগাযোগ করা যায়নি। ইসরোর তরফে এই ঘোষণা স্পষ্ট করা হয়েছে। বারবার প্রধানমন্ত্রী বলছেন, ব্যর্থতা বলে কিছু নেই। তবু বিজ্ঞানীদের চোখে জল। ইসরোর বিজ্ঞানীদের এবার বার্তা দিলেন ভুটানের প্রধানমন্ত্রী। শেষ মুহূর্তে চাঁদের মাটি ছুঁতে না পারলেও ইসরোর পাশে থাকার বার্তা এল আন্তর্জাতিক দুনিয়া থেকে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং ইসরোর বিজ্ঞানীরা একদিন চাঁদে পাৌঁছনোর স্বপ্ন সফল করবেনই বলে আশা প্রকাশ করলেন ভুটানের প্রধানমন্ত্রী লোটে শেরিং। শনিবারই এই বার্তা দিয়েছেন তিনি। চাঁদের

দক্ষিণ মেরুতে চন্দ্রযান নামাতে না পারলেও ভারত ও তার বিজ্ঞানীদের নিয়ে ভুটানও গর্বিত বলে ট্যুইট করেন শেরিং। শেষ মুহূর্তের চ্যালেঞ্জ বিক্রম ল্যান্ডার নিতে ব্যর্থ হলেও যে কাজ ইসরো করেছে তা ঐতিহাসিক বলে ট্যুইট-বার্তায় মন্তব্য করেন তিনি। তিনি আরও বলেন যে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে তিনি চেনেন, তাই এই স্বপ্ন যে সফল হবে সেই বিশ্বাস তাঁর আছে। ইসরোর এক আধিকারিক জানিয়েছে, ল্যান্ডারের সঙ্গে যোগাযোগ না করা গেলেও আগামী এক বছর ধরে অরবিটার চাঁদের বিভিন্ন ছবি তুলে পাঠাবে ইসরো-কে। এমনকি ল্যান্ডার বিক্রম কোথায় রয়েছে সেই ছবিও পাঠাতে পারে ওই অরবিটার। তবে ল্যান্ডার মধ্যে থাকা রোভারের আয়ু মাত্র ১৪ দিন বলে জানা গিয়েছে।

যেভাবে জিএসএকভি মার্ক ৩-তে চন্দ্রযান মহাকাশে পৌঁছেছে ও চাঁদের কক্ষপথে সফলভাবে প্রবেশ করেছে, তা ভারতের মহাকাশ গবেষণার গুরুত্বপূর্ণ অংশ হয়ে থাকবে বলে মনে করা হচ্ছে। এই সাফল্যকে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যেন একটি চলন্ত ট্রেন থেকে কয়েক হাজার কিলোমিটার দূরের অন্য একটি চলন্ত ট্রেন লক্ষ্য করে বুলেট ছোঁড়া হয়েছে। এ খবর দিয়েছে ভারতীয় গণমাধ্যম কলকাতা২৪। এছাড়া এত কম খরচে চন্দ্র অভিযান করার রেকর্ড তো থাকলই ভারতের হাতে। মাত্র ১৪০ মিলিয়ন ডলার খরচেই সম্পূর্ণ হয়েছে পুরো অভিযান। আমেরিকা অ্যাপোলো মিশনে খরচ করেছিল ১০০ বিলিয়ন ডলার। হিসেব কষে দেখা হয়েছিল, ভারতের এই অভিযানের খরচ হলিউডি ছবির

থেকেই কম। আরো পড়ুন… বর্তমান যুগ যে বিজ্ঞানের যুগ একথা তো সকলেরই জানা। কিন্তু বিজ্ঞানকে কাজে লাগাতে পারাটা মূল সার্থকতা। বিজ্ঞানকে কাজে লাগিয়ে কত সহজেই একটি বিশাল সেতুকে নিমিষেই উড়িয়ে দেয়া যায়, তাই যেন করে দেখালো চীন। চোখের নিমেষে উড়ে গেল একটা আস্ত ব্রিজ। চার সেকেন্ডেরও কম সময়ে বিরাট একটা সেতু ধ্বংস হয়ে যেতে দেখল চীন। প্রায় ৪০ বছরের পুরনো এই সেতুকে সম্প্রতি ধ্বংস করে দেওয়া হয়েছে কারণ ওই জায়গায় একটি নতুন ব্রিজ তৈরি করার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। ধ্বংসকৃত ব্রিজটি ১৫০ মিটার লম্বা ও ২৫ মিটার চওড়া। মাত্র সাড়ে ৩ সেকেন্ডে উড়িয়ে দেওয়া হয়েছে ওই

ব্রিজ। মুহূর্তের মধ্যে ধুলো হয়ে যায় নানহু ব্রিজ। এটা পরিষ্কার করতে তিন থেকে পাঁচদিন সময় লাগবে বলে জানা গিয়েছে। আরও জানা যায়, উত্তর-পূর্ব চীনের ওই সেতুটিকে ধ্বংস করতে ৭০০ কিলোগ্রাম বিস্ফোরক ব্যবহার করা হয়েছে। রবিবার সকালে নানহু ব্রিজ নামে ওই সেতুকে উড়িয়ে দেওয়া হয়। সেই ধ্বংস হয়ে যাওয়ার ভিডিও এখন ভাইরাল ইন্টারনেটে। চিনের বিভিন্ন লোকাল চ্যানেলে দেখানো হয় সেই ফুটেজ। ১৯৭৮ সালে নানহু ব্রুজ তৈরি করা হয়েছিল। নিরাপত্তার কারণে তৈরি করা হচ্ছে নতুন ব্রিজ। নতুন ব্রিজটি হবে অনেক বেশি চওড়া। দুদিকে বেশ খানিকটা জায়গা থাকবে। সেখানে পথচারীদের হাঁটার জায়গা থাকবে। চলতি বছরের সেপ্টেম্বর মাসে নতুন ব্রিজটি

খুলে যাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ভিডিও টি দেখতে এখানে ক্লিক করুন… অন্যরা যা পড়ছে… সম্প্রতি কাশ্মীর নিয়ে ইসলামাবাদ-দিল্লির উত্তেজনার মধ্যেই পাকিস্তানে ২০ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করছে সৌদি আরব। পাক-সৌদির পরবর্তী সবোর্চ্চ সমন্বয় পরিষদের বৈঠকে এ বিনিয়োগ করা হবে বলে দেশটির পক্ষ থেকে প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়।এদিকে সৌদি আরবের জ্বালানি উপমন্ত্রী খালিদ সালেহ আল-মোদাইফার গতকাল শুক্রবার এক মতবিনিময় সভায় বলেন, ‘প্রস্তাবিত মেগা প্রকল্পগুলো

জটিল এবং সময় ও অধ্যয়ন প্রয়োজন তবে আমাদের নেতারা সে কাজকে ত্বরান্বিত করতে চান।’ খবর এক্সপ্রেস ট্রিবিউনের। তাছাড়া সালেহ আল-মোদাইফার ফেব্রুয়ারিতে সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের সফরের সময় স্বাক্ষরিত সমঝোতা স্মারকের (এমওইউ) বিষয়ে অগ্রগতি পর্যালোচনা করতে সৌদি প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। এ ব্যাপারে উপমন্ত্রী বলেন, ‘সবোর্চ্চ সমন্বয় পরিষদের বৈঠকের আগে বাস্তব ফলাফল দেখানোর পরিকল্পনা রয়েছে।’ পাকিস্তানে পেট্রোকেমিকেল কমপ্লেক্স, নবায়নযোগ্য শক্তি প্রকল্প এবং খনিজ সম্পদের ওপর ২০ বিলিয়ন ডলার ঘোষণা দিয়েছে সৌদি আরব। আর এসব প্রকল্প হবে বেলুচিস্তানে।এ ব্যাপারে বিশ্লেষকরা বলছেন, কাশ্মীর সংকটের ঠিক

এমন সময় সৌদি আরবের বিনিয়োগের বিষয়টি পাকিস্তানের জন্য সবুজ সংকেত।নিম্নচাপের আশংকা ছিলই৷ সেই আশংকা সত্যি করে বঙ্গোপসাগরে তৈরি হয়েছে প্রবল নিম্নচাপ৷ যার জেরে দিঘা বকখালিতে উঠতে পারে ১২ থেকে ১৪ ফুট উঁচু ঢেউ৷ এমনই সতর্কবার্তা জারি করেছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর৷ শনিবার দিঘার সমুদ্রে প্রবল জলোচ্ছাসের জন্য পর্যটকদের সমুদ্রে নামতে নিষেধ করা হয়েছে৷ এদিকে, সপ্তাহের শেষে বেশ ভীড় থাকে দীঘা-বকখালি-শঙ্করপুরে৷ সেই ভিড় সামলে প্রকৃতির রোষ থেকে বাঁচার জন্য তৈরি হচ্ছে পুলিশ প্রশাসন৷ শুরু হয়েছে মাইকিং৷ সমুদ্রের তীরে কোনও পর্যটককেই ঘুরতে দেওয়া হচ্ছে না৷ ফলে বেশ মুষড়ে পড়েছেন পর্যটকরা৷ দক্ষিণবঙ্গের

বিভিন্ন জেলায় হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাতের খবর শুনিয়েছে হাওয়া অফিস৷ তবে দিঘাতে ঘণ্টায় ৪৫ কিমি বেগে ঝোড়ো হাওয়া বইতে পারে বলে আংশকা৷ ওড়িশা উপকূলের দিকে এই নিম্নচাপ সরে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে, তাহলেও ঝোড়ো হাওয়ার হাত থেকে রেহাই নেই সমুদ্রউপকূলবর্তী এলাকাগুলির৷ যার মধ্যে অন্যতম দিঘা ৷ আলিপুর আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, আবারও নিম্নচাপ তৈরির ফলেই ছুটির দিনগুলিতে সকাল থেকেই মুখভার থাকবে আকাশের৷ উত্তর বঙ্গোপসাগরে নিম্নচাপ তৈরি হয়েছে। তার জেরে শনি ও রবিবার হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিতে ভিজতে পারে দক্ষিণবঙ্গ। উপকূলবর্তী জেলাগুলিতে ভারি বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। এছাড়া আগামী ৪৮ ঘণ্টা সমুদ্রের কাছাকাছি এলাকাগুলিতে অন্ততপক্ষে ৪৫ কিলোমিটার বেগে ঝোড়ো হাওয়া বওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তাই মৎস্যজীবিদের সমুদ্রে যেতে নিষেধ করা হয়েছে। দিঘার সমুদ্রে পর্যটকদের নামতে বারণ করা হয়েছে৷ জারি করা হয়েছে সতর্কতা৷ মূলত দিঘা, মন্দারমণি, তাজপুরের সমুদ্রসৈকত নিয়েই কিছুটা চিন্তায় প্রশাসন৷ সমুদ্র তীরবর্তী দোকানগুলিকেও সতর্ক করা হয়েছে৷

সংবাদটি শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019 newstodaybd.com
Design BY NewsTheme