সর্বশেষ আপডেট
এক রা’তেই ফি’রলেন ২১৫ জন সৌদি প্রবাসী । সৌদিতে না’রী ক’র্মীর বিষয়টি খুবই জটিলঃ পররা’ষ্ট্র ম’ন্ত্রী । মালয়েশিয়ার আদালতে ৪ বাংলাদেশি না’রীর কা’রাদ’ন্ড।, নেপথ্যে যে কারণ… ইতালিতে ম’সজিদে এ’কযো’গে হা’মলার প’রিক’ল্পনাঃ বিপুল পরিমান অ’স্ত্র উ’দ্ধার । মক্কায় ক্রে’ন দু’র্ঘটনাঃ আ’হত বাংলাদেশিকে যে প’রিমাণ ক্ষ’তিপূ’রণ দেয়া হলো । সৌদিতে গৃ’হক’র্মী নি’র্যা’ত’ন, দ্রু’ত’ই আ’সছে না কোন সু’সংবা’দ । গুলতেকিনের দ্বিতীয় বিয়ে নিয়ে যা বললেন বড় ছেলে নুহাশ । সৌদি থেকে ফিরেছে ৫৩ নারীর মরদেহ, যা বললেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী । কিশোরগঞ্জে কুমারী মাতার সন্তান প্রসব নিয়ে তোলপাড় । মেয়েরা মিলনের চেয়েও বেশি পছন্দ করে এই বিষয়গুলো ।
ফরিদপুরের শিশু তালহা প্রতিদিন মুখস্থ করে ১ পারা কুরআন!

ফরিদপুরের শিশু তালহা প্রতিদিন মুখস্থ করে ১ পারা কুরআন!

ফরিদপুরের মুহাম্মদ আবু তালহা। পুরো কুরআনুল কারিম মুখস্থ করার বিরল কৃতিত্ব অর্জন করেন। ঢাকার মারকাজুল কুরআন মাদরাসার ছাত্র তালহা ৬/৭ বছরের শিশু। রাজধানী ঢাকার বারিধারা নতুন বাজারের এ হিফজ মাদ্রাসা থেকেই পবিত্র কুরআনুল কারিম মুখস্থ করে।

হাফেজ মুহাম্মদ আবু তালহা প্রথম দিকে উস্তাদকে ৫ পৃষ্ঠা সবক শোনাত। ধীরে ধীরে সবক বাড়তে থাকে। শেষ দিকে এসে প্রতিদিন ১ পারা পর্যন্ত সবক দিয়েছে এ শিশু। সর্বোপরি মহান আল্লাহর অশেষ মেহেরবানীতে মাত্র ১০৫ দিন অর্থাৎ তিন মাস ১৫ দিনে সে পুরো কুরআন মুখস্থ করতে সক্ষম হয়।

ফরিদপুর জেলার নগরকান্দা থানার গোড়াইল গ্রামের হাবিবুর রহমান ও হুসনে আরা বেগমের তিন সন্তানের মধ্যে বড় আবু তালহা। বাড়ি ও বাবা-মায়ের মায়া ত্যাগ করে রাজধানীর এ প্রতিষ্ঠানে থেকে অল্প সময়ে পুরো কুরআনুল কারিম মুখস্থ করার অনন্য কৃতিত্ব অর্জন করে।

যে কোনো শিশু কিংবা বড় মানুষের জন্যই প্রতিদিন ৫ পৃষ্ঠা থেকে ১ পারা কুরআন মুখস্থ অনেক কষ্টসাধ্য কাজ। কোনো শিশুর তা অর্জন মানেই এটা মহান প্রভু এক নিদর্শন। শিশু হাফেজ আবু তালহা প্রতিটি পরিবারের জন্য অনুপ্রেরণা। এ বয়সে অক্লান্ত পরিশ্রম ও প্রচণ্ড চেষ্টায় গত ৩১ জুলাই পবিত্র কুরআনুল কারিম খতম সম্পন্ন করেছে। আল্লাহ তাআলা এ শিশু হাফেজকে কুরআনুল কারিমের খাদেম হিসেবে কবুল করুন। আমিন।

আরো পড়ুন… আল্লাহর একান্ত মেহেরবানীতে হৃদয় দিয়ে আপ্রাণ প্রচেষ্টার পর মানুষ পবিত্র কুরআন মুখস্ত করতে সক্ষম হয়। বিশ্বে এমন অনেক নজির আছে যারা চেষ্টা করেও কুরআন মুখস্ত করতে পারে না। কিন্তু মানসিক প্রতিবন্ধি মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল-কারনি এর ব্যতিক্রম। তিনি পুরো পবিত্র কুরআন মুখস্ত করেছেন।

৩১ বছর বয়সের যুবক আল-কারনি মানসিক প্রতিবন্ধি। মানসিকভাবে অক্ষম ব্যক্তি। অসুস্থ হওয়া সত্ত্বেও পুরো কুরআন মুখস্ত করে সারা বিশ্বকে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন তিনি। চিকিৎসা বিজ্ঞানের মাধ্যমে তার পরিবার জানতে পারে যে, মোহাম্মাদ আব্দুল্লাহ আল-কারনি লিখতে ও পড়তে পারবে না।

এ কারণে তাকে স্কুলেই ভর্তি করানো হয়নি। হাসপাতলেই কেটেছে তার জীবনের অধিকাংশ সময় কেটেছে।কোনো মাদ্রাসায় ভর্তি না হয়েই প্রাতিষ্ঠানিক পড়ালেখার ক্ষমতা ছাড়াই হৃদয় দিয়ে পুরো মুখস্ত করে সারা বিশ্বকে তাক লাগিয়ে দিয়েছে।

সৌদি বংশোদ্ভূত মোহাম্মাদ আব্দুল্লাহ আল-কারনি শুধু মানসিক অসুস্থই নয়, বরং তার শারীরিক অঙ্গপ্রত্যঙ্গেও রয়েছে অসঙ্গতি। তার ভাই মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ জানান, ‘কারনি শারীরিক সমস্যা নিয়ে এভাবেই জন্ম গ্রহণ করে। জন্মের পর তার একটি মুত্রনালী নষ্ট হয়ে গেছে।

একটি মাত্র পেলভিস নিয়ে সে বেঁচে আছে। এখনও সে রিয়াদের কিং ফাহাদ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছে। মানসিক অসুস্থ মোহাম্মাদ আব্দুল্লাহ আল-কারনি যেমন প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা ছাড়াই পবিত্র কুরআন মুখস্ত করতে সক্ষম। তাই মানসিক অসুস্থ সব সন্তানকে কুরআনের শিক্ষা দেয়ার চেষ্টা করা যেতে পারে। আল্লাহ তাআলা কুরআনের প্রভাবে মানসিক ও শারীরিক অসুস্থ ব্যক্তিকে সুস্থও করে দিতে পারেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019 newstodaybd.com
Design BY NewsTheme
[X]