সর্বশেষ আপডেট
এবার শুরু হচ্ছে দুবাই প্রবাসীদের ভোটার কার্যক্রম । ২০২০ সালের হজ চুক্তি ১ ডিসেম্বর । মা হারানো শিশুটির দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নিলেন উপমন্ত্রী শামীম । #জরুরী_আবহাওয়া_বার্তাঃ তেঁতুলিয়ায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা, তীব্র শীতের আভাস মা হারানো শিশুটির দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নিলেন উপমন্ত্রী শামীম নাদিয়ার মা-বাবার খোঁজ মিলছেই না আপনার একটি শেয়ারে হয়ত নাদিয়া ফিরে পাবে ওর বাবা মাকে । এমপি নিজেও কাঁদলেন, প্রধানমন্ত্রীকেও কাঁদালেন । গা’জা থেকে রকেট বৃষ্টি শুরু, আত’ঙ্কে দিশেহারা ইস’রাইল । ইরফান পাঠানের স্ত্রী বলিউড অভিনেত্রীদের থেকেও সুন্দরী, ছবিসহ । যে কাজ করায় প্রশংসায় ভাসছেন ওসি মেহেদী হাসান…
তেলাপিয়া মাছ খেলে হবে যেসব বিপদ ।

তেলাপিয়া মাছ খেলে হবে যেসব বিপদ ।

একসময় তেলাপিয়া মাঝে বাঙালি নাট সিঁটকালেও বর্তমানে এ মাছই খাবারের তালিকায় অন্যতম। তেলাপিয় এখন বাঙালির অত্যন্ত প্রিয় একটি মাছ। এ মাছের পুষ্টিগুণ নিয়ে এখনও কোনো দ্বিমত হয়নি পুষ্টিবিদদের মাঝে।তেলাপিয়ায় প্রোটিন, পটাশিয়াম, ভিটামিন বি-১২, ফসফরাসের মতো একাধিক অপরিহার্য উপাদান রয়েছে বলে জানিয়েছেন পুষ্টিবিদরা।সেকারণেই তেলাপিয়া বাংলাদেশে বেশ জনপ্রিয় একটি মাছ। যদিও প্রথম দিকে এ মাছে তেমন একটা আগ্রহী ছিল না এ দেশের মানুষ।

তবে সম্প্রতি একাধিক গবেষণায় তেলাপিয়া মাছের বেশ কয়েকটি ক্ষতিকর দিক প্রকাশ পেয়েছে।তেলাপিয়া মাছ খেলে মরণব্যাধি ক্যান্সারের ঝুঁকি প্রায় ১০ শতাংশ বেড়ে যেতে পারে বলে দাবি করেছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কৃষি বিভাগের (ইউএসডিএ) গবেষকরা।এশিয়া থেকে যুক্তরাষ্ট্রে আমদানি হওয়া তেলাপিয়া মাছগুলোর ওপর গবেষণা করেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কৃষি বিভাগ।গবেষণায় তারা এসব তেলাপিয়া মাছের দেহে মানব দেহের জন্য ক্ষতিকারক বিষ খুঁজে পান।

৮০০-র বেশি নমুনা পরীক্ষা করেন তারা। সে পরীক্ষায় ‘ডিবিউটিলিন’ এবং ‘ডাইঅক্সিন’ নামের মারাত্মক ক্ষতিকর রাসায়নিকের উপস্থিতি পান এসব তেলাপিয়ার মাংসে।প্লাস্টিকের বিভিন্ন জিনিস তৈরিতে ব্যবহৃত হয় এই ‘ডিবিউটিলিন’ যা মানবদেহে প্রবেশ করলে স্থুলতা, হাঁপানি, অ্যালার্জি এবং নানা রকমের বিপাকীয় রোগের কারণ হয়ে দাঁড়ায়।এর চেয়েও ভয়ংকর রাসায়নিক ‘ডাইঅক্সিন’ যা মানবদেহে প্রবেশ করলে ক্যান্সারের ঝুঁকি বহুগুণ বাড়িয়ে দিতে পারে বলে দাবি বিজ্ঞানীদের।

যুক্তরাষ্ট্রের ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এফডিএ) এর রিপোর্টে জানানো হয়েছে, তেলাপিয়া উৎপাদনে ব্যবহৃত মাছেদের খাদ্য হাঁস, শূকর বা মুরগির দেহাবশেষ থেকে এসব বিষ জন্মেছে তাদের শরীরে। এগুলো খেলে মাছগুলো দ্রুত বেড়ে ওঠলেও একই সঙ্গে বিষাক্ত হয়ে ওঠে।উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্রে আমদানি হওয়া তেলাপিয়া মাছের বাজারের ৭০ শতাংশই চীনের দখলে।বাংলাদেশসহ বিশ্বের ১৩৫টিরও বেশি দেশে বর্তমানে তেলাপিয়া মাছের চাষ হয়।

বাংলাদেশে উৎপাদিত তেলাপিয়াতে কোনো ক্ষতিকর উপাদান নেই বলে দাবি করা হয়েছিল বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইন্সটিউটটের (বিএফআরআই) পক্ষ থেকে। ২০১৬ সালে বিএফআরআই এর এক গবেষণার তথ্য তুলে ধরে তৎকালীন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ সচিব মো. মাকসুদুল হাসান খান বলেছিলেন ‘বাংলাদেশে উৎপাদিত তেলাপিয়া মাছ খাওয়ার ক্ষেত্রে কোনো স্বাস্থ্যগত সমস্যা বা ঝুঁকি নেই। এখানকার তেলাপিয়া মাছে কোনো বিষাক্ত রাসায়নিক দ্রব্য নেই। স্বাস্থ্যের জন্য শতভাগ নিরাপদ এবং পুষ্টিমান সমৃদ্ধ। তাই দেশের মানুষ বিনা ভয়ে তেলাপিয়া মাছ খেতে পারবেন।’

সংবাদটি শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019 newstodaybd.com
Design BY NewsTheme